প্রচ্ছদ রাজনীতি

ভারতের নীতি নির্ধারকদের সাথে বৈঠক: ‘তৃতীয় শক্তিকে’ ক্ষমতায় চায় বিএনপি?

165
ভারতের নীতি নির্ধারকদের সাথে বৈঠক: ‘তৃতীয় শক্তিকে’ ক্ষমতায় চায় বিএনপি?

আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে সরানোই বিএনপির এখন মূল লক্ষ্য। আওয়ামী লীগকে হটিয়ে যদি বিএনপি ক্ষমতায় না আসে

তাহলেও দুঃখ নেই দলটির। বিএনপি চায় একটি তৃতীয় শক্তি যেন মধ্যবর্তী সময়ে দায়িত্ব নেয়। এই তৃতীয় শক্তি কি, তা স্পষ্ট করেনি বিএনপি। সম্প্রতি বিএনপি নেতৃবৃন্দের সঙ্গে ভারতের নীতি নির্ধারকদের বৈঠকে এরকমই মনোভাব ব্যক্ত করা হয়েছে। বিএনপির দায়িত্বশীল একটি সূত্র এ কথা নিশ্চিত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, বাইরে বেগম জিয়ার মুক্তি তাদের প্রধান লক্ষ্য বলা হলেও ভেতরে বিএনপির চাওয়া অন্যরকম। বিএনপি চায় ‘যেকোনো মূল্যে’ বর্তমান সরকারকে হটাতে। আর এই হটানো যে রাজপথের আন্দোলনে সম্ভব না সেটা তারা জানে। নির্বাচনের আগে তাই বিএনপি কিছু একটা করতে চায়।

গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর কাছে খবর আছে, দেশে বড় ধরনের নাশকতা করা অথবা রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির ওপর আক্রমণ করে দেশকে অস্থিতিশীল করার একটি জঙ্গি নীল নকশা আছে। এই নীল নকশার পিছনে যে বিএনপির প্রচ্ছন্ন সমর্থন আছে, তা বোঝার জন্য বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন নেই।

এই নীল নকশার বাইরে আওয়ামী লীগকে হটাতে দেশে বিদেশে চাপ সৃষ্টির কৌশল নিয়েছে দলটি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, ‘আমরা বলতে চাইছি, আওয়ামী লীগ তৃতীয়বার ক্ষমতায় এলে তাঁরা কাউকে তোয়াক্কা করবে না। কাউকে পাত্তাও দেবে না। তাই এখনই সময়।’

সম্প্রতি বিএনপি নেতাদের ভারত সফরেও ‘তৃতীয় শক্তি’ নিয়ে কথা হয়েছে। বিএনপি ভারতের কাছে খোলামেলা ভাবেই বলেছে। ‘আমাদের ক্ষমতা দরকার নেই। তোমরা অন্য কাউকে আনতে পারো।’ শুধু বিএনপি নয়, অধ্যাপক ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরীর জাতীয় সরকার তত্ত্বও তৃতীয় শক্তির ইঙ্গিতবাহী। ড. কামাল হোসেনও নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির জন্য একটা স্বল্পদৈর্ঘ্য সময়ের জন্য ‘অন্যরকম’ সরকার চান।

সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য সফরে তিনি স্পষ্ট করেই এসব কথা বলেছেন। এমনকি, ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরাও গত কয়েকমাসে বেশ সক্রিয়। তারা এখন ‘অবাধ ও নিরপেক্ষ’ নির্বাচনের জন্য দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার কথা বলছেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছে, দেশে আরেকটি ওয়ান ইলেভেন আনার নীরব প্রস্তুতি চলছে। কিন্তু ওয়ান ইলেভেন আনার ক্ষেত্রে যে মূল অনুষঙ্গ সে সময় কাজ করেছিল তারা এখন নীরব এবং এসব থেকে এখন অনেক দূরে। এ কারণেই সুশীল সমাজ সোচ্চার হয়ে উঠেছে।

সাম্প্রতিক মাদক বিরোধী অভিযানকেই সরকারের সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করা হয়েছে। যেন সরকারের উপর আন্তর্জাতিক অনাস্থা তৈরি হয়। কিন্তু রোহিঙ্গা ইস্যুর কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গন এই সরকারের উপর কোনো ধরনের চাপ সৃষ্টি করতে পারছে না। ভারতও নানা কারণে আওয়ামী লীগের বিকল্প পাচ্ছে না। আর ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা অতীত তিক্ত অভিজ্ঞতায় একই পথে যেতে সাহস পাচ্ছে না। বিকল্প পথ কি পাবে বিএনপি; যে পথে নির্বাচন ছাড়াই আওয়ামী লীগকে হটাতে পারবে তারা? আওয়ামী লীগও একথা স্বীকার করে, রাস্তার আন্দোলন নয়, ষড়যন্ত্রে বিএনপি চ্যাম্পিয়ন।

শেয়ার

আপনার মন্তব্য করুন

Loading Facebook Comments ...