প্রচ্ছদ বিশ্ব

যে কারণে প্রণব মুখার্জিকে ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী ভাবা হচ্ছে!

42
যে কারণে প্রণব মুখার্জিকে ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী ভাবা হচ্ছে!

নাগপুরে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের বার্ষিক অধিবেশনে যোগ দেওয়ার পর থেকেই ভারতের রাজনৈতিক মহল এবং গণমাধ্যমে

জল্পনা শুরু হয়েছে যে আগামী লোকসভা ভোটের পরে সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জিই কি দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী?

জল্পনার পালে হাওয়া জুগিয়েছে বিজেপির শরিক শিবসেনা। তাদের দলীয় মুখপত্রে প্রকাশিত হয়েছে সম্পাদকীয়। তাতে সম্পাদক সঞ্জয় রাউত লিখেছেন, আগামী লোকসভা ভোটে বিজেপি সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে আরএসএস প্রণব বাবুকেই ভারতের পরবর্তী সর্বসম্মত প্রধানমন্ত্রী করতে চায়। এই জন্যই তাঁরা নরেন্দ্র মোদির বিকল্প হিসেবে প্রণবকেই দেখতে শুরু করেছেন। প্রণব বাবু এসব নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

তবে তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল জানিয়েছে, তিনি সরকার ও রাজনীতিতে ফিরে আসার কোনো পরিকল্পনা করেননি। ত্রয়োদশ রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ার সময়ে তিনি কংগ্রেসের দলীয় সদস্যপদ থেকে ইস্তফা দেন। এখন পর্যন্ত সেই সদস্য পদ ফেরত নেননি।

বিশিষ্ট সাংবাদিক এবং বর্তমানে কংগ্রেসে সাংসদ কুমার কেটকার বলেছেন, ‘পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রণব বাবুর নাম নিশ্চিত বিবেচিত হচ্ছে। তাই তিনি আরএসএসের সভায় গিয়েছেন।’ তাৎপর্যপূর্ণ হলো—প্রণব বাবুর আরএসএসের সভায় যাওয়া নিয়ে প্রথমে কংগ্রেসে দলের নেতাদের একাংশ প্রকাশ্যেই প্রবল সমালোচনা করেছিলেন। কিন্তু তাঁর ভাষণের পরে জাতীয় কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরযেওয়ালা সন্ধ্যায় সাংবাদিক বৈঠক ডেকে প্রণবের ভাষণের প্রশংসা করেন।

সাবেক অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম থেকে বাণিজ্যমন্ত্রী আনন্দশর্মা, মুখপাত্র অভিষেক মনু সিংভি প্রভূত প্রশংসা করেন। শিবসেনার যুক্তি হলো হিন্দুত্বে বিশ্বাসী হওয়া সত্ত্বেও আরএসএস কোনোদিন তাদের সভায় বাল ঠাকরেকে আমন্ত্রণ জানাননি। তাহলে হঠাৎ কেন প্রণব বাবু? উল্লেখ্য, প্রণব বাবুর যখন রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন তখন এই শিবসেনা তাঁকেই ভোট দিয়েছিল।

ভারতের গণমাধ্যমে এও জল্পনা শুরু হয়েছে যে, নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহরা আরএসএস থেকেই রাজনীতিতে এসেছেন তাঁরা এখনো প্রণব বাবুর আরএসএস দফতরে যাওয়া নিয়ে পক্ষে বা বিপক্ষে কোনো মন্তব্য করলেন না কেন?

শেয়ার

আপনার মন্তব্য করুন

Loading Facebook Comments ...