প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

কোটা আন্দোলন: এবার মুক্তিযোদ্ধাদের ছয় দফা দাবি

464
কোটা আন্দোলন: এবার মুক্তিযোদ্ধাদের ছয় দফা দাবি

কোটা সংস্কার আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে কোটা ব্যবস্থা বাতিল ঘোষণার পর এবার মুক্তিযোদ্ধারা ছয় দফা দাবি জানিয়েছেন।

আজ রোববার দুপুরে প্রেসক্লাবে মুক্তিযোদ্ধাদের গণ জমায়েত ও মিছিল অনুষ্ঠানের এই দাবি জানানো হয়েছে।

ওই অনুষ্ঠানে নৌ মন্ত্রী শাহজাহান খান বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের অসন্মান করা হয়েছে। একই সঙ্গে তিনি কোটা সংস্কার আন্দোলনে নৈরাজ্য সৃষ্টি কারীদের কঠিন শাস্তিও দাবী করেন।

পরে মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের ছয় দফা দাবির কথা বলেন। এগুলো হলো:

১. কোটা সংস্কারের নামে হত্যার গুজব ছড়িয়ে উস্কানি দিয়ে যারা অরাজকতা সৃষ্টি করেছে, তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

২. জামাত-শিবির-রাজাকার সন্তানদের চাকরিতে নিয়োগ বন্ধ করতে হবে।

৩. স্বাধীনতা বিরোধীরা যারা সরকারি চাকরিতে বহাল থেকে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত করছে ও মুক্তিযুদ্ধ এবং সরকারবিরোধী নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে, তাদের খুঁজে বের করে চাকরি হতে অপসারণ করতে হবে।

৪. যুদ্ধাপরাধীদের সব অস্থাবর-স্থাবর সম্পত্তি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করতে হবে।

৫. ২০১৩, ২০১৪, ২০১৫ সালে আন্দোলনের নামে যারা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করেছে এবং বেসরকারি ও রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করেছে, স্পেশাল ট্রাইবুন্যাল গঠন করে তাদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

৬. মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান ক্ষুণ্নকারী ও মুক্তিযোদ্ধা এবং বঙ্গবন্ধুকে কটাক্ষকারীদের বিরুদ্ধে পাশ্চাত্যের হলোকাস্ট বা জেনোসাইড ডিনাইল ল`র আদলে আইন প্রণয়ন করে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে।

ওই সমাবেশে ঘোষণা করা হয়, আগামী ৯ এপ্রিল বিকাল তিনটায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানদের নিয়ে সমাবেশ করা হবে।

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কার আন্দোলনের কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে কোটা ব্যবস্থা বাতিলের ঘোষণা করেন।

খালেদা জিয়ার দুই মামলার জামিন শুনানি ২৫ এপ্রিল

জাতীয় পতাকা অবমাননা ও জন্মদিন পালন সংক্রান্ত বেগম খালেদা জিয়ার দু’ টি মামলার জামিন শুনানি আগামী ২৫ এপ্রিল দিন ধার্য করেছে আদালত।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী এডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার জানান, রবিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আহসান হাবিবের আদালত এই মামলার জামিনের শুনানির জন্য ২৫ এপ্রিল তারিখ ধার্য করেন।

পুরনো ঢাকার আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে বিশেষ আদালতে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে গত ১২ এপ্রিল খালেদা জিয়ার আইনজীবী আদালতকে খালেদা জিয়ার কারাগারে থাকার বিষয়টি অবহিত করলে অপর বিচারক সেদিন একই তারিখ ধার্য করেছিলেন।

খালেদা জিয়ার ১১ মামলার শুনানি ১৫ মে

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে হত্যা ও রাষ্ট্রদ্রোহসহ ১১ মামলার শুনানির তারিখ পিছিয়ে আগামী ১৫ মে পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছে আদালত।

মঙ্গলবার মামলাগুলো শুনানির জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু অধিকাংশ মামলার কার্যক্রম খালেদা জিয়ার পক্ষে হাইকোর্ট স্থগিত করেছেন জানিয়ে শুনানি পেছানোর আবেদন করেন তার আইনজীবী সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেজবাহ ও জিয়া উদ্দিন জিয়া।

পুরান ঢাকার বকশিবাজারস্থ কারা অধিদপ্তরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা আসামিপক্ষের সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে এ দিন ঠিক করেন।

মামলাগুলোর মধ্যে রয়েছে রাজধানীর দারুস সালাম থানার নাশকতার ৮টি, যাত্রাবাড়ী থানার দুইটি ও রাষ্ট্রদ্রোহের একটি মামলা।

১১ মামলার মধ্যে যাত্রাবাড়ী থানার একটি হত্যা মামলায় অভিযোগপত্র গ্রহণের বিষয়ে শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। অপর ১০ মামলা ছিল অভিযোগ গঠনের বিষয়ে শুনানির জন্য।

প্রসঙ্গত, মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার অভিযোগে গত বছর ২৫ জানুয়ারি আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলাটি দায়ের করা হয়।

এদিকে যাত্রাবাড়ী থানার মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২৩ জানুয়ারি রাতে যাত্রাবাড়ীর কাঠেরপুল এলাকায় গ্লোরি পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাসে পেট্রোল বোমা হামলা হয়। এতে বাসের ২৯ যাত্রী দগ্ধ এবং নূর আলম (৬০) নামে এক যাত্রী মারা যান।

ওই ঘটনায় ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করে যাত্রাবাড়ী থানায় মামলা করেন থানার উপপরিদর্শক এসআই কে এম নুরুজ্জামান। ওই বছরের ৬ মে খালেদা জিয়াসহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন ডিবি পুলিশের পরিদর্শক বশির আহমেদ।

অন্যদিকে, ২০১৫ সালে দারুস সালাম থানা এলাকায় নাশকতার অভিযোগে আটটি মামলা দায়ের করা হয়। এই আট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আসামি করা হয়।

শেয়ার

আপনার মন্তব্য করুন

Loading Facebook Comments ...