সৌদি আরবে অনলাইনে নারী গৃহকর্মীর কালোবাজার

106
সৌদি আরবে অনলাইনে নারী গৃহকর্মীর কালোবাজার

সৌদি আরব এবং উপসাগরীয় আরব দেশগুলোকে বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে নারী গৃহকর্মী কেনা-বেচা হচ্ছে।

সরকারি নিয়ম-কানুন বিধি-নিষেধ এড়িয়ে অন-লাইনে বিদেশী নারী গৃহকর্মী বেচা-কেনার কালো বাজার তৈরি হয়েছে।

এরকম একটি ফেসবুক গ্রুপ বিবিসির নজরে এসেছে যেখানে মানুষজন গৃহকর্মী চেয়ে পোস্টিং দিচ্ছেন। খবর বিবিসির।

সেই গ্রুপের পোস্টে এক ব্যক্তি লিখেছেন- ‘ডিসেম্বরে বিদেশ ভ্রমণে যাওয়ার আগে এক, দুই বা তিনমাসের জন্য জরুরী ভিত্তিতে একজন গৃহকর্মী প্রয়োজন।’

আরেকজন পোস্ট দিয়েছেন, ‘ভ্রমণ বা পর্যটন ভিসায় এসেছেন, এমন কাউকে গৃহকর্মী হিসাবে খুঁজছি। সর্বক্ষণ বাড়িতে থাকতে হবে।’

এই প্রবণতা এতটাই বিস্তৃত হচ্ছে যে সৌদি আরবে ইতিমধ্যেই এ ব্যাপারে তদন্ত হয়েছে এবং কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

সৌদি আরব এবং উপসাগরীয় দেশগুলোতে লোকজন রিক্রুটিং এজেন্টদের মাধ্যমেই সাধারণত বিদেশ থেকে নারী গৃহকর্মীদের আনে। অধিকাংশই আসে এশিয়া এবং আফ্রিকার কিছু গরীব দেশ থেকে। তবে পাশাপাশি তৈরি হয়েছে অনলাইনে কালো বাজার।

বিদেশি শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করে কাতার-ভিত্তিক এমন একটি সংস্থা মাইগ্র্যান্ট রাইটসের বানি সরস্বতী বলছেন, ‌‘রিক্রুটমেন্ট এজেন্সির মাধ্যমে গৃহকর্মী নিয়োগ অনেক খরচের ব্যাপার, অনেক মানুষ তাই অনলাইনে সোশ্যাল মিডিয়ার আশ্রয় নিচ্ছেন।’

একজন গৃহকর্মী নিয়োগের জন্য ২৫০০ থেকে ৫০০০ ডলার পর্যন্ত ফি দিতে হয়। অনলাইনে লোক পাওয়া গেলে, এই টাকাটা বাঁচে।

সৌদি আরবে অভিবাসী শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করেন এমন একজন বলেছেন, অনেক গৃহকর্মীও রিক্রুটিং এজেন্টকে পাশ কাটিয়ে কালো বাজারে কাজ নিতে আগ্রহী। ‘তারা বেশি মজুরী আদায় করতে পারে। যেহেতু তাদের মনিবদের রিক্রুটিং এজেন্টকে ফি দিতে হয়না, ফলে তারা কিছু বেশি মজুরি দিতে প্রস্তুত থাকে।’

নাওয়াল আল হাউসায়ি নামে একজন সৌদি নারী বলছেন, সোশ্যাল মিডিয়ার ফলে বৈধ পথে গৃহকর্মী আনা কঠিন হয়ে পড়ছে। ‘গৃহকর্মীরা বৈধভাবে একবার ঢুকে পড়লে, সে চুক্তি ভেঙ্গে চাকরি ছেড়ে দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অন্যত্র দ্বিগুণ মজুরীতে কাজ নিয়ে চলে যাচ্ছে।’

তবে একজন গৃহকর্মী বলেছেন, সময়মত বেতন না দেয়া, শারীরিক-মানসিক নির্যাতন বন্ধ না হলে, গৃহকর্মীরা পালিয়ে অবৈধভাবে হলেও অন্যত্র কাজ নেয়ার চেষ্টা করবেই।

কিভাবে অনলাইনে তারা কাজ জোগাড় করেন? ‘আপনি যখন একজনকে জানান, আপনার কাজ চাই, সে তখন ফেসুবকে আপনার ফোন নম্বর পোস্ট করবে, অবৈধ কিন্তু এভাবে আমরা সোশ্যাল মিডিয়ারে মাধ্যমে কাজ জোগাড় করি।’

সৌদি শ্রম মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র খালেদ আবা আলখাইল বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে এধরণের অবৈধ রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি খোলা বেআইনি এবং এমন কাজে জড়িত লোকজনকে ধরতে পারলে তাদের বিচার হবে।

তিনি জানান, গত কমাসে সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করা এরকম ৯০টি বিজ্ঞাপন তদন্ত করা হয়েছে। কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

শেয়ার

আপনার মন্তব্য করুন

Loading Facebook Comments ...